বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১২:০২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরেনাম ::
ধর্ম নিয়ে কটুক্তি করায় নোবিপ্রবির চার সংগঠন থেকে প্রতীক মজুমদারকে বহিষ্কার জবিতে তিথী সরকার কে স্থায়ী বহিষ্কারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও স্মারকলিপি প্রদান উৎসর্গ ফাউন্ডেশন এর জবি শাখার সভাপতি প্রণয় সাধারন সম্পাদক মেহেদী বশেমুরবিপ্রবি : অপেক্ষামান শিক্ষার্থীদের ভর্তির দাবিতে আমরণ অনশন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা হবে সশরীরে ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটুক্তি,নোবিপ্রবির দুই শিক্ষার্থীর বহিষ্কারের দাবিতে বিক্ষোভ মহানবীকে ব্যঙ্গচিত্রের প্রতিবাদে তিতুমীর কলেজে মানববন্ধন ফেনীতে বিজয়া দশমী সম্পন্ন মুসলিম উম্মাহর প্রাণের স্পন্দনকে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র, সারাবিশ্বে তোলপাড় জিবিএমসির পথচলার এক বছর

উচ্চশিক্ষার জন্য সব শিক্ষার্থী ভর্তি হলেও আসন শূন্য থাকবে : ইউজিসি

  • আপডেট টাইম বুধবার, ১৪ অক্টোবর, ২০২০, ৯.০০ পিএম
ইউজিসি UGC

ক্যাম্পাস টুডে ডেস্ক


চলতি বছর এইচএসসি-সমমানের পরীক্ষা না হলেও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার তোড়জোড় শুরু হয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষা শেষ করার চিন্তাভাবনা চলছে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি গুচ্ছ না কেন্দ্রীয় (ক্যাট) পদ্ধতিতে হবে, সেটি এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

দেশের শীর্ষ পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাট পদ্ধতিতে পরীক্ষা নিতে ইচ্ছুক। অন্যদিকে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) চাচ্ছে গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নিতে। তারা বলছে, গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষার আয়োজন নিয়ে তারা কাজ শুরু করেছেন। আগামীকাল ১৫ অক্টোবর সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের নিয়ে বৈঠক হবে। সেখানে কোন পদ্ধতিতে পরীক্ষা হবে সে বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।

এদিকে করোনা সংক্রমণের ভয়ে এইচএসসি পরীক্ষা বাতিল হলেও ‘পরীক্ষা দিয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে হবে’— এমন সিদ্ধান্তে উদ্বিগ্ন শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা। তাদের মতে, অপরিহার্য পরীক্ষা বাতিল হলো অথচ করোনা পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে তোড়জোড় কোনোভাবেই কাঙ্ক্ষিত নয়।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জানুয়ারি মাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি কার্যক্রম শুরু হতে পারে। তবে শীতের কারণে করোনার সংক্রমণ পরিস্থিতি খারাপ হলে পরীক্ষা পেছাতে পারে। সেক্ষেত্রে শীত শেষে অর্থাৎ ফেব্রুয়ারি বা মার্চে পরীক্ষা নেয়া হতে পারে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যদি অপেক্ষা করতে না চায় তাহলে জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতেই ভর্তি পরীক্ষা হতে পারে। সেক্ষেত্রে সশরীরে শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হতে হবে। এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত আগামীকালের (১৫ অক্টোবর) বৈঠকে গৃহীত হতে পারে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য (পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়) অধ্যাপক দিল আফরোজা বেগম বলেন, ‘গুচ্ছ পদ্ধতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন হবে। এজন্য আমাদের প্রস্তুতিও অনেক এগিয়েছে। আগামী বছরের শুরুতে সশরীরে ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন হবে। অল্প সময়ের মধ্যে পরীক্ষা গ্রহণ এবং ফল প্রকাশের চেষ্টা থাকবে।’

তার দাবি, আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি প্রক্রিয়ায় আসতে আপত্তি জানালেও বর্তমানে তারা এ পদ্ধতিতে আগ্রহ দেখাচ্ছে। এ বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। ১৫ অক্টোবর এ সংক্রান্ত একটি সভায় সবাই উপস্থিত থাকবেন। সেখানে এসব বিষয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। ‘এক থেকে দেড় ঘণ্টার মধ্যে ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হবে’ বলেও জানান তিনি।

আগের সিদ্ধান্ত অর্থাৎ ক্যাট পদ্ধতিতে পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত বহাল রয়েছে বলে জানান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আকতারুজ্জামান। তিনি বলেন, আমাদের আগের সিদ্ধান্তই বহাল রয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নিজেরাই ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন করবে।

তিনি বলেন, ‘নতুন সিদ্ধান্তে এইচএসসিতে গ্রেড পদ্ধতিতে কী ফল আসবে, তার ওপরও নির্ধারণ করে আমাদের ভর্তি পরীক্ষার কর্মপরিকল্পনা চূড়ান্ত হবে। এটি (ভর্তি পরীক্ষা) কখন, কীভাবে এবং কত নম্বরে আয়োজন হবে, তা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ফোরামের মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

এদিকে এইচএসসি-সমমান পরীক্ষার জন্য ফরম পূরণ করা প্রায় ১৪ লাখ পরীক্ষার্থীকে অটোপাস দেয়া হলেও সারাদেশে উচ্চ শিক্ষায় সেই সংখ্যক আসন নেই বলে জানা গেছে। এ কারণে সবার জন্য উচ্চ শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিতের বিষয়টি কঠিন হয়ে পড়বে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ইউজিসি থেকে জানা গেছে, সারাদেশে পাবলিক-প্রাইভেট, মেডিকেল, ডেন্টাল, এমআইএসটি এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ১২ লাখ আসন রয়েছে। অথচ এ বছর প্রায় ১৪ লাখ শিক্ষার্থী পাস করেছেন। ফলে দুই লাখ শিক্ষার্থীর উচ্চ শিক্ষার বিষয়টি অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। প্রতি বছর মোট পরীক্ষার্থীর ১০ থেকে ১৫ শতাংশ ফেল করত। সেই হিসাবে আসন সঙ্কট না হলেও এবার শতভাগ পাস হওয়ায় জটিলতা তৈরি হয়েছে। শিক্ষার্থীদের চাইতেও অতিরিক্ত আসন রয়েছে বলে জানিয়েছেন ইউজিসি’র সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলমগীর।

তিনি বলেন, উচ্চ শিক্ষার জন্য পর্যাপ্ত আসন রয়েছে। সব শিক্ষার্থী ভর্তি হলেও কিছু আসন শূন্য থাকবে। ভর্তি থেকে কেউ বাদ যাবে না।

ভর্তির প্রক্রিয়া নিয়ে তিনি বলেন, আমরা গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করাব। এক্ষেত্রে তিনটি গুচ্ছ হবে। এগুলো হচ্ছে- কৃষি, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি এবং সাধারণ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি। মোট পাঁচটি ধাপে পরীক্ষার আয়োজন হবে। প্রথম দুটির জন্য দুটি পরীক্ষা হবে। শেষেরটির জন্য বিজ্ঞান, কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান এবং বিজনেস স্টাডিজে তিনটি পরীক্ষা হবে।

‘গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা হলে একজন শিক্ষার্থী সবগুলোতে অংশগ্রহণ করতে পারবে। আলোচনা অনুযায়ী বড় পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় আলাদা পরীক্ষার ব্যবস্থা করবে। তবে বিদ্যমান পরিস্থিতি (করোনা মহামারি) এবং শিক্ষার্থীদের সার্বিক স্বার্থ বিবেচনায় তারাও গুচ্ছ পদ্ধতিতে চলে আসবে বলে আমরা প্রত্যাশা করছি।’

গত ৩০ অক্টোবর এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানান, গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। সমন্বিতভাবে এ পরীক্ষা নেয়া হবে। আগামী জানুয়ারিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হতে পারে।
তখন যে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হবে এবং সশরীরে পরীক্ষাটি নেয়া যাবে কি-না, সেটি কেউ নিশ্চিত করতে পারছে না। পরীক্ষার ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ই সিদ্ধান্ত নেবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বর্ষে শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য ইতোমধ্যে তিনটি পদ্ধতির প্রস্তাব এসেছে। প্রথমে গুচ্ছ পদ্ধতিতে শিক্ষার্থী ভর্তির চিন্তা নিয়ে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের।

The Campus Today YouTube Channel

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazar_creativenews_II7
© All rights reserved © 2019-20 The Campus Today
Theme Download From ThemesBazar.Com