শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:১৮ অপরাহ্ন

কুয়েট বন্ধ ঘোষণা, হল ত্যাগের নির্দেশ

  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০২১, ১.০৭ পিএম
কুয়েটে শিক্ষকের অস্বাভাবিক মৃত্যু

কুয়েট টুডে: খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) শিক্ষক অধ্যাপক ড. সেলিম হোসেনের মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে আগামী ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

অধ্যাপক সেলিম হোসেন কুয়েটের ইলেক্ট্রিক্যাল ও ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক এবং লালন শাহ হলের প্রভোস্ট ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) সকালে বিশ্ববিদ্যালয় জরুরি এক সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভায় ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণার পাশাপাশি শুক্রবার বিকেল ৪টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এর আগে আজ সকাল ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে সিন্ডিকেট সভা ‍শুরু হয়। এ সময় ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। সভায় উপাচার্যসহ সিন্ডিকেট সদস্যরা অংশ নেন।

এদিকে, সভা শুরুর পর ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নেন। এ সময় তারা ছাত্র রাজনীতি বন্ধ না করাসহ ৫ দফা দাবিতে উপাচার্যের কাছে স্মারকলিপি দেন।

বিজ্ঞাপন

প্রসঙ্গত, গত ৩০ নভেম্বের বিকেলে হৃদরোগে অধ্যাপক সেলিম হোসেনের মৃত্যু হয়। এরপরই অভিযোগ ওঠে তিনি কুয়েট ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের লাঞ্ছনা ও অপদস্থের শিকার হয়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এ সংক্রান্ত কয়েকটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

ভিডিওতে দেখা যায়, ছাত্রলীগ নেতা সাদমান নাহিয়ান সেজানের নেতৃত্বে কয়েকজন নেতাকর্মী ক্যাম্পাসের রাস্তায় ড. সেলিম হোসেনের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করছেন, তর্ক-বিতর্ক করছেন। পরে তারা ড. সেলিমকে অনুসরণ করে তড়িৎ প্রকৌশল ভবনে শিক্ষকের ব্যক্তিগত কক্ষে প্রবেশ করেন এবং প্রায় ৩০ মিনিট পর ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা বের হয়ে যান। পরে অধ্যাপক সেলিম বের হয়ে বাসায় যান।

বিজ্ঞাপন

ওই শিক্ষকের স্ত্রী জানান, বাসায় ফেরার পর ড. সেলিম বাথরুমে যান। কিন্তু দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও তিনি বের না হওয়ায় তিনি দরজা ভেঙে তাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, হলের খাদ্য ব্যবস্থাপক (ডাইনিং ম্যানেজার) নির্বাচন নিয়ে কয়েক দিন ধরে ছাত্রলীগ নেতারা প্রভোস্ট ড. সেলিম হোসেনকে চাপ দিয়ে আসছিলেন। সবশেষ মঙ্গলবার তারা ড. সেলিমের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন এবং হুমকি দেন। এতে তিনি প্রচণ্ড মানসিক আঘাত পান; এক পর্যায়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

বিজ্ঞাপন

The Campus Today YouTube Channel

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazar_creativenews_II7
All rights reserved © 2019-20 The Campus Today