খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি নিলেন ৫ গবেষক

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি নিলেন ৫ গবেষক

খুবি টুডে


খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) বোর্ড অব এ্যাডভান্সড স্টাডিজ এবং একাডেমিক কাউন্সিলের সুপারিশক্রমে ৫ জন গবেষককে তাঁদের ভিন্ন ভিন্ন বিষয়ে মৌলিক গবেষণার জন্য ডক্টর অব ফিলোসফি (পিএইচডি) ডিগ্রির চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সিন্ডিকেটের ২০৬ তম সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয়।

পিএইচডি ডিগ্রিপ্রাপ্তরা হলেন বায়োটেকনোলজি এন্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং ডিসিপ্লিনের গবেষক মোঃ আব্দুল জলিল, তার বিষয় ‘মলিক্যুলার ক্যারেক্টারাইজেশন অব প্রোবায়োটিক ব্যাকটেরিয়া এন্ড ডিভেলপমেন্ট অব প্রোবায়োটিক প্রোডাক্টস ফর হিউম্যান’ তাঁর গবেষণা তত্ত্ববধায়ক ছিলেন একই ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. খোন্দকার মোয়াজ্জেম হোসেন।

এছাড়া একই ডিসিপ্লিন থেকে গবেষক মো: ইমদাদুল ইসলাম পিএইচডি ডিগ্রি পেয়েছেন। তার বিষয় ছিলো ‘ইনভেস্টিগেশন অব অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট, অ্যান্টি-ইনফ্ল্যাম্যাটোরি এন্ড ১৫-লাইপোজিজেনাস ইনহিবিটরি অ্যাক্টিভিটিস অব সিলেক্টেড ম্যানগ্রোভ প্ল্যান্টস অব সুন্দরবনস্’ তার গবেষণা তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন একই ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. এস এম মাহাবুবুর রহমান।
এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স ডিসিপ্লিন থেকে পিএইচডি ডিগ্রি পেয়েছেন গবেষক মোহাম্মদ শরিফুল ইসলাম। তার বিষয় ‘নলেজ এন্ড প্র্যাকটিস ফর রিডিউসিং দি এফেক্টস্ অব ডাইজেস্টার অন হেলথ ইন সাউথ ওয়েস্ট বাংলাদেশ’। তার গবেষণা তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন একই ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. মোঃ মুজিবুর রহমান।

একই ডিসিপ্লিন থেকে পিএইচডি ডিগ্রি নিলেন গবেষক মোঃ মেহেদী আল মাসুদ। তার বিষয় ছিলো ‘টাইডাল রিভার ম্যানেজমেন্ট এন্ড ইটস ইমপ্যাক্ট ইন দ্য সাউথওয়েস্ট রিজিওন অব বাংলাদেশ’। তার গবেষণা তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন একই ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. আবুল কালাম আজাদ।

এছাড়া এগ্রোটেকনোলজি ডিসিপ্লিন থেকে পিএইচডি ডিগ্রি পান গবেষক জাহান আল মাহামুদ। তার বিষয় ছিলো ‘হেলথ স্ট্যাটাস অব লেন্টিল সিড ইন মেজর লেন্টিল গ্রোয়িং এরিয়াস অব বাংলাদেশ এন্ড ডিটারমিন্যাশন অব কন্ট্রোল মিজারস এগেইনেস্ট লেন্টিল ডিজিসেস’। তার গবেষণা তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন একই ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. মাহতালাত আহমেদ।

খুবি উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেট সভায় পিএইচডি ডিগ্রিপ্রাপ্ত গবেষকদের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানানো হয়। আশা করা হচ্ছে হয় গবেষরা নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে এই গবেষণার বিষয় কাজে লাগিয়ে দেশের অগ্রগতিতে অবদান রাখতে সক্ষম হবেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *