রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৪:৩০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরেনাম ::
ক্ষুদ্র ঋণ: গ্রামীণ মানুষের আতঙ্ক ও সমাধান গণরুমে কাটানো সময়গুলো নিঃসন্দেহে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের সেরা মুহূর্ত কয়রায় সাংবাদিককে প্রাণনাশের হুমকি, থানায় জিডি কিশোরগঞ্জের এক গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার, গ্রেফতার দুই পিছিয়ে যাওয়া প্রেসিডেন্টস কাপের ফাইনাল আজ ফেনীতে স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনায় বেসরকাখাতের ভূমিকা শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত করোনার অজুহাতে জাতিকে ধ্বংস করতেই অটোপাসের সিদ্ধান্ত গণ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে হুমকি, থানায় জিডি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত আসবে চলতি সপ্তাহে: ইউজিসি চেয়ারম্যান যুক্তরাষ্ট্রের ১০০ ভেন্টিলেটর উপহার পৌঁছেছে

তুই বলায় স্ত্রীকে ভয় দেখাতে গিয়ে মেরে ফেললেন স্বামী

  • আপডেট টাইম সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৮.৩৯ পিএম

ময়মনসিংহ টুডে


পারিবারিক কলহের জেরে রাগের মাথায় স্বামীকে তুই বলে সম্বোধন করায় তামরিন নাহার পপি নামে এক গৃহবধূকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে হত্যা করেছেন স্বামী।ঘটনাটি ময়মনসিংহের ঝলুয়া এলাকায় ঘটেছে।  পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে স্ত্রীকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন শাহীন।

শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাতে সাড়ে ১১টার দিকে  হত্যাকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটে। রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে হত্যা মামলা দায়েরের পর সোমবার আদালতের মাধ্যমে শাহীনকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

স্ত্রীকে ভয় দেখানোর জন্য গলায় ওড়না পেঁচান তিনি। গলায় ওড়না পেঁচালেই স্ত্রী মারা যাবে তা বুঝতে পারেননি বলেও জানান শাহীন।

তামরিন নাহার পপি ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার ঝালুয়া মহল্লার আবু ছাঈদ মন্ডলের মেয়ে। শাহীন একই উপজেলার আাঁচারগাঁও ইউনিয়নের সিংদই গ্রামের আব্দুল হালিমের ছেলে। তিন মাস আগে শাহীনের সঙ্গে পপির বিয়ে হয়।

ঘটনা নিশ্চিত করে নান্দাইল থানা পুলিশের ওসি মিজানুর রহমান আকন্দ বলেন, শাহীন প্রথমে হত্যার কথা অস্বীকার করলেও পরে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে স্ত্রীকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। কি কারণে স্ত্রীকে হত্যা করেছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে শাহীন পুলিশকে বলেন, তুই বলে সম্বোধন করে আমাকে বকা দেয় পপি। তখন ভয় দেখানোর জন্য পপির গলায় ওড়না পেঁচাই। এতে পপি মারা যাবে, আমি তা বুঝতে পারিনি।

ওসি মিজানুর রহমান আরও  বলেন, শাহীন বিয়ের পর থেকে শ্বশুরবাড়িতে বসবাস করতেন। ঘটনার দিন রাত সাড়ে ১১টার দিকে ঝগড়ার জেরে গলায় ওড়না পেঁচালে স্ত্রী পপি অজ্ঞান হয়ে যান। পরে পপিকে নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। প্রতিবেশীরা পুলিশকে খবর দিলে হাসপাতালে গিয়ে শাহীনকে গ্রেফতার করা হয়।

রোববার সকালে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ওই দিন ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তরের পর দাফন করা হয়। নিহতের গলায় আঘাতের চিহ্ন থাকায় হত্যা মামলা করা হয়। সোমবার সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে শাহীনকে আদালতে পাঠানো হয়। পরে তাকে কারাগারে পাঠান বিচারক।

The Campus Today YouTube Channel

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazar_creativenews_II7
© All rights reserved © 2019-20 The Campus Today
Theme Download From ThemesBazar.Com