শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন

নোবিপ্রবিতে এক বিভাগের দায়িত্বে দুই চেয়ারম্যান

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২১, ১০.৪৫ পিএম
নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

নোবিপ্রবি প্রতিনিধি: নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (নোবিপ্রবি) বায়োকেমিস্ট্রি এবং মলিকুলার বায়োলজি (বিএমবি) বিভাগে দায়িত্ব পালন করছেন দুই চেয়ারম্যান।

মেয়াদ শেষ না হওয়ার আগেই চেয়ারম্যান পদ থেকে সরিয়ে নেওয়া সহযোগী অধ্যাপক ড. সুবোধ কুমার উচ্চ আদালতের আদেশে আবারো চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন।উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের আদেশ অনুসারে একই দায়িত্ব পালন করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেক সহকারী অধ্যাপক তনিমা সরকার।

বিজ্ঞাপন

১ ডিসেম্বর (বুধবার) কোর্স রেজিষ্ট্রেশন এর ব্যবস্থা গ্রহণ প্রসঙ্গে, চেয়ারম্যান হিসেবে মাসিক ভাতা পুনঃ বহাল প্রসঙ্গে, জরুরী ভিত্তিতে কক্ষ বরাদ্দ প্রসঙ্গে চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর দিয়ে তিনটি চিঠি ইস্যু করে ড. সুবোধ কুমার। এর আগে গত ৩০ ডিসেম্বর বিভাগের পরীক্ষা কমিটির ডাকা মিটিং এর চিঠিতে বিভাগীয় চেয়ারম্যান হিসেবে চিঠিতে স্বাক্ষর করে তনিমা সরকার।

২৯ নভেম্বর (মঙ্গলবার) উচ্চ আদালতের এক আদেশে তনিমা সরকারকে নিযুক্ত করে দেয়া বিশ্ববিদ্যালয় আদেশ স্থগিত করা হয়। ব্যরিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া স্বাক্ষরে পাঠানো এক নোটিশে এটি জানানো হলেও তনিমা সরকারের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন উচ্চ আদালতের আইনকে অমান্য করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. সুবোধ কুমার। তিনি বলেন, আমি মনে করি বিশ্ববিদ্যালয় উচ্চ আদালতের রায় আমলে নিয়ে আমার প্রাপ্য সম্মান ফিরিয়ে দিবে।

বিজ্ঞাপন

উচ্চ আদালতের মূল কপি না পাওয়ায় এখনো তনিমা সরকার চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বলে জানিয়েছেন নোবিপ্রবি রেজিস্ট্রার (অঃদাঃ) মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন। তিনি বলেন, আদালতের আদেশ হাতে পেলে কর্তৃপক্ষ বিষয়টি বিবেচনা করবে।

উল্লেখ্য, গত ১ নভেম্বর নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইন ২০০১-এর ধারা ২৫(৩) অমান্য করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বায়োকেমিস্ট্রি এবং মলিকুলার বায়োলজি (বিএমবি) বিভাগের সহযোগী অধ্যাপককে চেয়ারম্যান পদ থেকে সরিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেক সরকারী অধ্যাপক তনিমা সরকারকে চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) নিযুক্ত করেন।

বিজ্ঞাপন

এর প্রেক্ষিতে অধ্যাপক ড. সুবোধ কুমারের পক্ষে গত ১৮ নভেম্বর বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া আইনি নোটিশ দেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ দিদার-উল-আলম সহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ জনকে এই আইনি নোটিশ পাঠানো হয়। নোটিশ প্রাপ্তরা বাকি ৪ জন হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আব্দুল বাকী, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) জসিম উদ্দিন, বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ হানিফ ও বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড মলিকুলার বায়োলজি বিভাগের নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান তনিমা সরকার।

পরবর্তীতে, শুনানি শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ভঙ্গ করে দেয়া উক্ত নিয়োগ আদেশ স্থগিত করে উচ্চ আদালত। বিচারপতি এনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমান ২৯ নভেম্বর এই রায় দেন।

বিজ্ঞাপন

The Campus Today YouTube Channel

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazar_creativenews_II7
All rights reserved © 2019-20 The Campus Today