শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:১২ অপরাহ্ন

পণ্যের দাম ও আগামী নির্বাচন

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ, ২০২২, ৭.৪৬ পিএম
পণ্যের দাম ও আগামী নির্বাচন

শাবলু শাহাবউদ্দিন


তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আমি নিজে আওয়ামী লীগের পক্ষে কাজ করে ছিলাম। বিনা স্বার্থে প্রচার করে ছিলাম, যদি আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে তাহলে নিত্য পণ্যের দাম কমবে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে নিত্য পণ্যের দাম ছিল আকাশ চুম্বি। মানুষ অভাবের তাড়নায় আলু সিদ্ধ খেয়ে জীবন অতিবাহিত করেছে সেই সময়। তাই অনেক পরিবারকে বোঝাতে সক্ষম হয়েছে ছিলাম, নৌকায় ভোট দিলে নিত্য পণ্যের দাম আকাশ থেকে মাটিতে নামবে। ফলে অনেকেই আমার কথায় বিশ্বাস করে আওয়ামী লীগের নৌকায় ভোট দিয়ে ছিল।

বিজ্ঞাপন

তখন আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে একটা প্রচার চল ছিল। দশ টাকা কেজি চাউল খাওয়ানো হবে যদি আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে। সেটা খোলা বাজারে কখনো সম্ভব হয়ে উঠেনি আওয়ামী লীগ সরকারের পক্ষে। কারণ আন্তর্জাতিক বাজারে চাউলের দাম তুলনামূলক ভাবে বেশি ছিল। তবে ন্যায্য মূল্য কোথাও কোথাও দশ টাকা কেজি চাউল দেওয়া হয়েছে ছিল সেই সময় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে তাদের অঙ্গীকার পূরণ করে ছিল। আমরা ছোট বেলায় পড়ে ছিলাম “শৈবাল দীঘিরে বলে উচ্চ করি শির। লিখে রেখো এক ফোঁটা দিলেম শিশির।” সরকারের অঙ্গীকার পূরণ ঠিক এ বাক্যের মতোই ছিল।

সে যাইহোক, আমি বলবো আমার দেখা একটি পরিবারের কথা। ছোট ছোট দুইটি ছেলে। আরো তিন জন মেয়ে। পরিবারে সদস্য সংখ্যা মোট সাত জন। আয় রোজগার করার মত পরিবারে সদস্য মাত্র একজন। বর্তমানে পণ্যের যে দাম তাতে তাদের পরিবার কোন মত করে চলতে হলেও কমপক্ষে দিনে ১০০০ টাকার বাজার লাগবে। সেখানে সেই পরিবারে আয় এখন গড়ে মাত্র দুই থেকে আড়াই শত টাকা। এক বার ভেবে দেখুন। এই পরিবার কীভাবে চলছে! তারা এখন আর তিন বেলা নয় দুই বেলা খায়। কোন কোন দিন এক বেলাও হয়। সেটা দুপুর বেলা। হয়তো অনেকেই বলতে পারেন আপনি তাদের সাহায্য করতে পারেন না। আমি সাহায্য করতে পারি। কিন্তু আমার অবস্থাও ততটা ভালো নেই। এই পরিবারের সকল সদস্য সব সময় বলে,” আল্লাহ্ সরকার পতন হোক। আমরা দু’বেলা খেয়ে বাঁচি।”

বিজ্ঞাপন

এতো গেলো এক পরিবারের কথা। এমন লক্ষ লক্ষ পরিবার আছে। যারা সবাই সাধারণ নাগরিক। কে সরকারি ক্ষমতায় আসলো আর কে সরকারি ক্ষমতা থেকে চলে গেল তাতে তাদের কোন মাথা ব্যথা নেই। তাদের চিন্তা একটাই। সারাদিন পরিশ্রম করবো। দিন শেষে ব্যাগ ভর্তি বাজার করবো। পেট ভর্তি আহার নিয়ে ঘুমিয়ে যাবো। এরা রাজনীতি বোঝে না। এরা শুধু বোঝে দু’বেলা খেয়ে দেয়ে সুখে শান্তিতে কোন মত করে জীবন যাপন করতে পারলেই চলবে। অল্প টাকায় চাহিদা মত নিত্য পণ্য ক্রয় করতে পারলেই এদের কাছে পৃথিবীটা স্বর্গ মনে হয় । এই মানুষগুলো সাথে বর্তমান সরকার চরম ভাবে বেইমানি করছে।

অভাবে স্বভাব নষ্ট বলে একটা কথা আছে। বর্তমানে মধ্যবিত্ত এবং নিম্ন বিত্তের মানুষগুলো চরম অভাবে আছে। এভাবে চলতে থাকলে তাদের স্বভাব নষ্ট হতে বেশি সময় লাগবে না। দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির আগে সরকারের উচিত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা। কথা আছে সময় গেলে সাধন হবে না। তাই সময় থাকতে সরকারকে অনুরোধ করবো বাজার নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসেন। সাধারণ মানুষের কথা একবার চিন্তা করেন। আগামী নির্বাচনে ভোট পেতে হলে। দেশের উন্নয়ন কার্যকর ভাবে কাজে বা জনগণের কল্যাণে লাগাতে হলে আপনাদেরকে সরকারি দলে টিকে থাকতে হবে। জনগণকে বাদ দিয়ে বেশি দিন টিকে থাকা যায় না। জনগণকে পাশে রাখতে হলে অবশ্যই অবশ্যই বর্তমানে বাজার নিয়ন্ত্রণ অপরিহার্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। নিত্য পণ্যের দাম আকাশ থেকে মাটিতে নামানো এখন আওয়ামী লীগ সরকারের প্রথম ও প্রধান দায়িত্ব। বলতে গেলে এটা এখন একটা ফরজ কাজ । এই ফরজ কাজ পালন না করলে আগামী নির্বাচনে আপনাদের কী অবস্থা হতে পারে একবার চিন্তা করেন। দালাল চাটুকার ভুঁইফোড়দের কথায় কান দিয়ে অট্টালিকায় বসে থাকার সময় জনদরদী আওয়ামী লীগ সরকারের এখন নয়।

বিজ্ঞাপন

জনগণ আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন দেখেছে। তারা আগামীতে আওয়ামী লীগ সরকারকেই ক্ষমতায় চায়। কিন্তু এখানে একটা কথা আছে। আমার লাভ। দেশ উন্নয়ন হলে আমার লাভ কী? আমি যদি তিন বেলা পেট ভর্তি আহার-ই করতে না পারি। তাহলে এই দেশ উন্নয়ন হলে আমার লাভ কী হবে। আপনি শুধু উন্নয়ন দেখিয়ে ক্ষমতায় থাকতে পারবেন না। ক্ষমতায় থাকতে হলে অবশ্যই আপনাদেরকে দেশের মেজরিটি পিপলসকে গুরুত্ব দিতে হবে। মধ্যবিত্ত এবং নিম্ন বিত্ত মানুষ হল এদেশের মেজরিটি পিপলস। এদের কথা মাথায় রেখে দেশ উন্নয়ন করতে হবে। তাদের চাহিদা পূরণ করতে হবে। এদেশের মেজরিটি পিপলস চায় নিত্য পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখা হোক।

একটা দেশে সামগ্রিকভাবে উন্নয়ন করতে হলে সে দেশের সকল পণ্যের দাম বৃদ্ধি পাবে এটা স্বাভাবিক কথা। কিন্তু সেটা সাধারণ মানুষের সহনীয় মাত্রায় থাকতে হবে। বিশেষ করে নিত্য পণ্যের দাম আকাশ চুম্বন কোন মতেই হতে দেও উচিত নয়। নিত্য পণ্যের দাম সবসময় ইতিবাচক থাকা উচিত। ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকা উচিত। এখনো এদেশের মেজরিটি পিপলসের আয় ততটা ভালো না। তাই তাদের কথা মাথায় রাখতে হবে। বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

বিজ্ঞাপন

আগামী নির্বাচনে ক্ষমতায় আসতে হলে শুধু পদ্মা সেতু, রাস্তা ঘাট, পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, কর্ণফুলী ট্যানেল, মেট্রো রেল দেখিয়ে কাজ হবে না। মেজরিটি পিপলসকে পাশে পেতে হলে নিত্য পণ্যের দাম আকাশ থেকে মাটিতে নামাতে হবে। উন্নয়নের সমন্বয় করতে হবে। মনে রাখতে হবে, “পেশি শক্তির চেয়ে, ব্যালট শক্তি অনেক বড়।” তাই ব্যালট বাক্সে নিজেদের শক্তি বাড়াতে, নিত্য পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে নিন। শেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলের নির্বাচনকে স্মরণ করে জনগণের পাশে দাঁড়ান।

শাবলু শাহাবউদ্দিন: কবি ও গল্পকার ।

বিজ্ঞাপন

The Campus Today YouTube Channel

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazar_creativenews_II7
All rights reserved © 2019-20 The Campus Today