বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ১১:১১ অপরাহ্ন

‘মন্দির বিশ্ববিদ্যালয়ের টাকায় নির্মিত নয় শুনে অবাক হয়েছি’

  • আপডেট টাইম রবিবার, ৪ অক্টোবর, ২০২০, ১১.৩১ পিএম
'মন্দির বিশ্ববিদ্যালয়ের টাকায় নির্মিত নয় শুনে অবাক হয়েছি'

শাফিউল কায়েস ও সাগর দে


বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি কর্তৃক আয়োজিত ‘কেমন হবে আগামীর বশেমুরবিপ্রবি’ লাইভ প্রোগ্রামে বশেমুরবিপ্রবিতে নবনিযুক্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ কিউ এম মাহবুব বলেন, ক্যাম্পাসের ধর্মীয় মন্দির শিক্ষার্থীদের টাকায় নির্মাণ। বিশ্ববিদ্যালয়ের টাকায় নির্মিত নয় শুনে অবাক হয়েছি। তবে এটা পরবর্তীতে আরও আধুনিক ও সুন্দর একটি মন্দির উপহার দেওয়ার চেষ্টা করবো।’

রবিবার (০৪ অক্টোবর) বশেমুরবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতি সংলাপে তিনি এ মন্তব্য করেছেন।

তিনি আরও বলেন, এখানে নিয়োগ পাওয়ার পর দেখলাম নিয়ম নীতি ছাড়াই ৩৪ ডিপার্টমেন্ট, অনেক ডিপার্টমেন্ট আছে যেখানে শিক্ষক ১ থেকে ২ জন বা সর্বোচ্চ ৫ থেকে ৬ জন যা একটি ডিপার্টমেন্টের জন্য পর্যাপ্ত নয়।

এসময় তিনি এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ভিসি কোটা নামে ছাত্র ভর্তি এটা আমি বিশ্বাস করি না, আশা করি পরবর্তী থেকে ভর্তি পরীক্ষার সময় সব কিছু সংশোধন করা হবে।

শেখ হাসিনা আইসিটি ইন্সটিটিউট নিয়ে তিনি বলেন, একটা ইনস্টিটিউট গবেষণা করার জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়, কিন্তু সাবেক ভিসি নাসিরউদ্দিন স্যার এটাকে শিবচরে অনার্স কোর্স চালু করেছে যা মোটেই কাম্য নয়। ছাত্রদের মাধ্যমে জানতে পারি ১০০ কিমি দুর থেকে যে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক রা ক্লাস নিতেন তাহলে তাদের অবস্থা কি হতে পারে? এ বিষয়ে মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়েছে যে এবার রিজেন্ট বোর্ডের সভায় এটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে আনা হবে, এ বিষয়ে তিনি সহমত প্রকাশ করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বেহাল দশার কারণ জানিয়ে তিনি বলেন, একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর আগে একাডেমিক বিল্ডিং, হল, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী নিয়োগের পর শিক্ষার্থী ভর্তি হয় কিন্তু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে তার উল্টো। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক সংকটসহ নানা ধরনের সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে।

‘ইতিহাস বিভাগের সমস্যা, বড় সমস্যা তবে এদের স্থায়ী সমাধানে পরবর্তীতে অল্প শিক্ষার্থী ভর্তির মাধ্যমে ডিপার্টমেন্ট চালু রাখার চেষ্টা করব তবে ইউজিসি, মন্ত্রণালয় ও রিজেন্ট বোর্ডের সভায় সমাধান হবে বলে আশা করি।’ তিনি যোগ করেন।

অন্যদিকে ইইই ও ইটিই বিভাগের সমস্যা নিয়ে বলেন, ‘ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) ও ইলেক্ট্রনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) বিভাগের কোর্স প্রায় ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ সেম বাকিটা সিলেবাসে সংযুক্ত করে ইইইদের সাথে এক করে সার্টিফিকেট দেওয়া হবে। তবে দেখলাম টিচারদের এ বিষয়ে একটু দ্বিমত তবে এ সমস্যা রিজেন্ট বোর্ডের সভায় সমাধান হবে বলে আশা করি।’

The Campus Today YouTube Channel

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazar_creativenews_II7
© All rights reserved © 2019-20 The Campus Today
Theme Download From ThemesBazar.Com