বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৯:৩৯ অপরাহ্ন

মরতে বসেছে ইবির প্রধান ফটকের কৃষ্ণচূড়া গাছটি

  • আপডেট টাইম মঙ্গলবার, ১১ মে, ২০২১, ১১.৪২ এএম

ইমানুল সোহান, ইবি: অযত্ন- অবহেলা, ডাল কাটা, বিভিন্ন পোস্টার আর বিলবোর্ডের পেরেকের ভারে মরতে বসেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের কৃষ্ণচূড়া গাছটি। প্রকৃতি পালাবদলের এই সময়ে লাল কৃষ্ণচূড়ায় ভিন্নরূপে হাজির হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকটি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট, ক্যালেন্ডার কিংবা বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে কৃষ্ণচূড়ার দগদগে লাল ছবিটি বেশি ব্যবহৃত হয়ে থাকে। কিন্তু প্রকৃতিতে গাছটি এখন নিঃপ্রাণ। ফুল তো দূরের কথা পাতা পর্যন্ত গজায়নি গাছটিতে।

গাছটির এমন অবস্থা মেনে নিতে পারছেন না বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গাছটির পূর্বের ছবির সাথে বর্তমান সময়ের চিত্র দিয়ে মনোঃকষ্ট প্রকাশ করছেন।

শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, ‘ গাছটি নিয়মিত পরিচর্যা করা হতো না। প্রধান ফটকের সামনে হওয়ায় অনেক সময় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন পেরেক দিয়ে বসানো হতো। সেই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে কখনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি। এছাড়াও কয়েক দফায় গাছটির ডাল কাটা হয়েছিলো। এসব কারনেই গাছটি আজ মরতে বসেছে। যে গাছটির সাথে আমাদের হাজারো স্মৃতি বহমান সেই গাছটির এই অবস্থা দেখে আমরা ব্যথিত- মর্মাহত।

এ বিষয়ে লোক প্রশাসন বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আকখার হোসেন আজাদ বলেন, ‘ বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম সৌন্দর্যবর্ধক কৃষ্ণচূড়া গাছটি দীর্ঘদিন ধরে অযত্ন এবং অবহেলায় ছিল। গাছের জন্য প্রয়োজনীয় সার দেওয়া তো দূরের কথা; বরং এর মূলে একটু পানি পর্যন্ত দেওয়া হতো না। মূলত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উদাসীনতার জন্যই ঐতিহ্যবাহী এই গাছটি আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা রোজদার আলী রুপম বলেন, ‘ আমি ব্যক্তি উদ্যেগে গাছটির এই অবস্থা দেখে পরিচর্যা করতে শুরু করি। কিন্তু গাছটি বাঁচানো যাবে বলে মনে হয়না।’

এ বিষয়ে এস্টেট অফিসের পরিচালক সাইফুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে একাধিবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও ফোনটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

The Campus Today YouTube Channel

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazar_creativenews_II7
All rights reserved © 2019-20 The Campus Today