সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ন

যশোরে শিক্ষার্থীদের ৬০ শতাংশ মেস-বাসা ভাড়া মওকুফ

  • আপডেট টাইম মঙ্গলবার, ৫ মে, ২০২০, ৯.৩৩ পিএম

ক্যাম্পাস টুডে ডেস্কঃ করোনা পরিস্থিতিতে যশোরে শিক্ষার্থীদের মেস-বাসা ভাড়া ৬০ শতাংশ মওকুফের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মেস-বাসার মালিকরা। সোমবার দুপুরে সার্কিট হাউজে জেলা প্রশাসনের এক সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এপ্রিল মাস থেকে ভাড়ার ৪০ শতাংশ দিতে হবে শিক্ষার্থীদের। সেই সঙ্গে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে।

যশোর শহর ও শহরতলীতে সহস্রাধিক মেস-বাসা রয়েছে যেখানে শিক্ষার্থীরা তাদের পড়াশোনার কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। তবে কোনো মালিক চাইলে মানবিক বিবেচনায় শতভাগ ভাড়া মওকুফ করতে পারবেন। তাতে কোনো বাধা নেই।

সার্কিট হাউজে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল হাসানের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম রব্বানী শেখ, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, যশোর সরকারি মাইকেল মধুসূদন (এমএম) কলেজের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক হামিদুল হক শাহীন, ১৫ জন মেস মালিক, সরকারি এমএম কলেজ ও যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) ছাত্র প্রতিনিধি।

এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল হাসান বলেন, গত ৩০ এপ্রিল যবিপ্রবি উপাচার্য প্রফেসর ড. আনোয়ার হোসেন দেশজুড়ে করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে ক্ষতির সম্মুখীন হওয়া শিক্ষার্থীদের মানবিক দিক বিবেচনা করে বাসা বাড়ির মালিকদেরকে মেসের সিটভাড়া মওকুফের আহ্বান জানিয়ে জেলা প্রশাসক মহোদয়কে ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানান। তার চিঠির প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশনায় সোমবার দুপুরে মেস মালিকদের একাংশ, ছাত্র, শিক্ষক প্রতিনিধি, পুলিশ প্রতিনিধি ও প্রেসক্লাব সভাপতির উপস্থিতিতে সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত সভায় মেস-বাসা মালিকদের প্রস্তাবনার ভিত্তিতেই ৬০ শতাংশ ভাড়া মওকুফের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এপ্রিল মাস থেকে করোনা সৃষ্ট উদ্ভুত পরিস্থিতি না কাটা পর্যন্ত অর্থাৎ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ভাড়া বাবদ ৪০ শতাংশ পরিশোধ করতে হবে। বিদ্যুৎ বিল, পানির বিলসহ অন্যান্য খরচের জন্য এই ভাড়া পরিশোধ করতে হবে। তবে কোনো বাড়ির মালিক যদি মানবিক বিবেচনায় পুরো ভাড়া মওকুফ করেন, তাহলে তাকে ধন্যবাদ।

তিনি আরও বলেন, কোনো মালিক যদি সিদ্ধান্ত না মেনে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অমানবিক আচরণ করেন, তবে আইনগত ব্যবস্থা নেবে পুলিশ প্রশাসন।

শিক্ষার্থীদের কেউ কেউ অভিযোগ করেছেন তাদের দরকারি জিনিসপত্র ঘরের বাইরে ফেলে দেয়া হয়েছে। এটা কোনোভাবেই করা যাবে না বলেও সর্তক করে দেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক।

The Campus Today YouTube Channel

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazar_creativenews_II7
All rights reserved © 2019-20 The Campus Today