নিউইয়র্কে প্রতি ৯ মিনিটে একজনের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক টুডে


দিনের পর দিন সারাবিশ্বের নানা প্রান্তে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যাও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে।

সর্বশেষ তথ্য মতে, ১৯৯টি দেশ ও অঞ্চলে করোনার বিস্তার ঘটেছে। করোনায় সারাবিশ্বের বিভিন্ন দেশে ৭ লাখ ২৩ হাজার ১২৪ জন আক্রান্ত হয়েছে। প্রাণঘাতী এই করোনা ৩৩ হাজার ৯৮৬ জনের প্রাণ কেড়েছে। দুঃখের মাঝেও সুখবর হচ্ছে করোনাকে হারিয়ে সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৫১ হাজার ৭৯৮ জন।

সম্প্রতি করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি আক্রান্তের সংখ্যা যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটির ৫০টি অঙ্গরাজ্যের সবগুলোতেই করোনার বিস্তার ঘটেছে। বেশি আক্রান্ত ও মৃত্যু হচ্ছে নিউ ইয়র্কে।

স্থানীয় সময়, রবিবার (২৯ মার্চ) সন্ধ্যা পর্যন্ত শুধুমাত্র নিউ ইয়র্ক শহরে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৭৬ জনে। নিউ ইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে এখন পর্যন্ত কমপক্ষে ১ হাজার ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। অর্থাৎ প্রতি ৯ মিনিটে একজন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছে।

গত ১ মার্চ নিউ ইয়র্কে ইরান ফেরত একজন প্রথম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়। তারপর ২ভদিন পরেই সেখানে ২য় আরেক ব্যক্তির আক্রান্তের খবর পাওয়া যায়। এর থেকেই ওই অঙ্গরাজ্যে দ্রুত গতিতে করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়ে।

এক মাস আগে নিউ ইয়র্কে প্রথম করোনার উপস্থিতি ধরা পড়ে। কিন্তু সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ওই অঙ্গরাজ্যে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছেই। সেখানে মৃত্যুর সংখ্যা এক হাজার ছাড়িয়ে গেছে।

করোনার ‘হটস্পট’র হিসেবে নিউ ইয়র্ক, নিউ জার্সি এবং কানেক্টিকাটের কথা উল্লেখ করে ওই তিন অঙ্গরাজ্যের বাসিন্দাদের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনের ঘোষণা দিয়েছে ফেডারেল সরকার।

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে নতুন করে করোনায় আরও ১৮ হাজার ৪২৬ জন আক্রান্ত হয়েছে। এনিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৪২ হাজার ৪ জন। অন্যদিকে দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে নতুন করে আরও ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৪৮৪ জনের।

উল্লেখ্য, গেল বছরের গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম করোনার উপস্থিতি ধরা পড়ে। এরপরেই বিশ্বের নানান প্রান্তে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়ে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ

Leave a Comment