রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৩:১৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরেনাম ::
ক্ষুদ্র ঋণ: গ্রামীণ মানুষের আতঙ্ক ও সমাধান গণরুমে কাটানো সময়গুলো নিঃসন্দেহে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের সেরা মুহূর্ত কয়রায় সাংবাদিককে প্রাণনাশের হুমকি, থানায় জিডি কিশোরগঞ্জের এক গৃহবধূ ধর্ষণের শিকার, গ্রেফতার দুই পিছিয়ে যাওয়া প্রেসিডেন্টস কাপের ফাইনাল আজ ফেনীতে স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনায় বেসরকাখাতের ভূমিকা শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত করোনার অজুহাতে জাতিকে ধ্বংস করতেই অটোপাসের সিদ্ধান্ত গণ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে হুমকি, থানায় জিডি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত আসবে চলতি সপ্তাহে: ইউজিসি চেয়ারম্যান যুক্তরাষ্ট্রের ১০০ ভেন্টিলেটর উপহার পৌঁছেছে

পরীক্ষা না দিয়ে অটোপাসের কোন সুযোগ নেই: উপাচার্য

  • আপডেট টাইম সোমবার, ১২ অক্টোবর, ২০২০, ১০.১৬ পিএম
পরীক্ষা না দিয়ে অটোপাসের কোন সুযোগ নেই

ক্যাম্পাস টুডে ডেস্ক


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনার্স চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের অটোপাসের সুযোগ নেই। করোনাভাইরাস শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাকি থাকা পরীক্ষাগুলো নেয়ার সব প্রস্তুতি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়েছে

সম্প্রতি গাজীপুরে বিশ্ববিদ্যালয় কার্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে অটোপাসের দাবিতে বিভিন্ন কলেজের বিএ (সম্মান) ও চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে তিনি এ কথা জানিয়েছেন।

এদিকে সোমবার (১২ অক্টোবর) দুপুরেও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের বোর্ডবাজার এলাকায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রধান কার্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে স্নাতক প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে চূড়ান্ত পরীক্ষার ফল প্রকাশের দাবিতে মানববন্ধন ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে এ বিক্ষোভ করেছে শিক্ষার্থীরা।

ড. হারুন-অর-রশিদ বলেন, অনার্স চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের অটোপাসের কোনও সুযোগ নেই। এটা প্রথম কিংবা দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা বললে তখন সেটা বিবেচনা করা যেত।

শিক্ষার্থীরা জানান, মৌখিক ও বিজ্ঞান বিষয়ের ব্যবহারিক পরীক্ষার গড় পদ্ধতি অনুসরণ করে সর্বোচ্চ ৩০ দিনের মধ্যে ফল ও করোনা পরিস্থিতিতে কলেজসমূহ বন্ধ হওয়ার আগে চতুর্থ বর্ষের অনুষ্ঠিত পাঁচটি বিষয়ে পরীক্ষার উত্তরপত্র মূল্যায়ন করে বাকি বিষয়গুলো ইনকোর্স পরীক্ষার নম্বর মূল্যায়ন করে ফল প্রকাশ করতে হবে।

এ নিয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান বলেন, স্বয়ংক্রিয় পাশের বিষয়টি এখনো ভাবা হচ্ছে না। আমরা অপেক্ষা করছি। শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যের কথা বিবেচনায় এনে এই মুহূর্তে ফেস টু ফেস পরীক্ষাও নেওয়া যাচ্ছে না। তাই আমাদের অপেক্ষা করতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা পর্যন্ত অপেক্ষা করছি। ভ্যাকসিন এলেও সমস্যার সমাধান হবে।

পরীক্ষার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন রয়েছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বলেন, আমাদের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন রয়েছে। আমরা শুধু করোনার প্রকোপ কমার অপেক্ষা করছি। পরিস্থিতি একটু উন্নতি হলে আমরা একদিনও কালক্ষেপণ করবো না। ফাইনাল ইয়ারের পরীক্ষার্থীদের অর্ধেক পরীক্ষা হয়ে গেছে। অবশিষ্ট পরীক্ষা পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হলেই নিয়ে নেয়া হবে।

The Campus Today YouTube Channel

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazar_creativenews_II7
© All rights reserved © 2019-20 The Campus Today
Theme Download From ThemesBazar.Com