রুপে নয় যার মন সুন্দর সেই প্রকৃত সুন্দর

একটা ফুল দেখে করা পরবর্তী পদক্ষেপ দেখেই আপনার চরিত্র সম্পর্কে বলে দেওয়া যায়। ফুল দেখে দুরকম মানুষের দুধরণের অনুভূতি হয়। কেউ চায় পছন্দের ফুলটি ছিঁড়ে ফেলতে। নিজের করে পেতে চায় সুন্দরকে। অন্য কারো জন্য এ সুন্দরকে রাখতে চায় না। হিংসে আর লোভে অন্ধ হয়ে কেড়ে নেয় ফুলটি।

কেউ চায় ফুলটি থাকুক ডালে। অন্যরাও দেখুক তার সৌন্দর্য। পথে যেতে যেতে কেউ ফুল ছিঁড়ে নিজের অধিকারে আনলে বঞ্চিত হয় বাকিরা। সৌন্দর্যকে প্রকৃতি সবার জন্য উন্মুক্ত করে রাখে। কিন্তু লোভী ও হিংসুক মানুষের জন্য সৌন্দর্যের দেখা না পেয়ে বাকিদের সৌন্দর্য-তৃষ্ণা অপূর্ণ রয়ে যায়। প্রকৃতিতে সৌন্দর্যের এই শূন্যতা মানুষের মনেও শূন্যতা তৈরি করে। মানুষের মনের শূন্যতা থেকেই সমস্ত অপরাধের সৃষ্টি হয়।

মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি – এই গানটা আমাকে শুধু বহিঃশত্রু থেকেই বাঁচার অনুপ্রেরণা দেয় না। বরং অন্তরের শত্রুর সাথেও মোকাবেলা করার শক্তি যোগায়। প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করি সৌন্দর্যকে বাঁচাবো বলে। যুদ্ধ করি প্রাণকে বাঁচাবো বলে। নিজের সাথেই নিজে যুদ্ধ করি অপরাধকে দমাবো বলে। নিজের সাথেই নিজে যুদ্ধ করি সৌন্দর্যের তৃষ্ণাকে অপূর্ণ ভাববো না বলে। নিজের সাথেই নিজে যুদ্ধ করি মনের মধ্যে শূন্যতা তৈরি হতে দেবো না বলে।

সুন্দরকে দেখি। মন ভরে দেখি। প্রশংসা করি৷ কিন্তু নিজের করে পেতে চাই না৷ সুন্দর সকলের অধিকার। বাইরের সুন্দরের জন্ম মনের অসুন্দর নষ্ট করার জন্য। মনের সৌন্দর্য প্রকাশ পায় বাইরের কদর্যকেও সুন্দর দেখার মধ্য দিয়ে। কালো মেয়েটিও সুন্দর। সুন্দর সবার মন। সুন্দরকে দেখি অবিরাম। প্রেমে পড়ি সারাক্ষণ। কিন্তু প্রেমকে নিজের করে পেতে চাই না৷ আমার প্রেমকে একজনে আবদ্ধ করা সম্ভব নয়। সম্ভব নয় নিবদ্ধ করা কোনো একজনের চোখেতে।



লিখেছেন শ্রী অর্পন কৃষ্ণ গোস্বামী, ফেসবুক পাতা থেকে।



সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ

Leave a Comment