১১ দফা দাবিতে উত্তাল হাবিপ্রবি, বাস চলাচল বন্ধ

তানভীর আহমেদ, হাবিপ্রবি প্রতিনিধি


দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি) আজ বুধবার (১৫ জানুয়ারি) ছাত্রদের আন্দোলনের মুখে বন্ধ হয়ে যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস চলাচল। বিকাল ৫ টার পর ক্যাম্পাস থেকে ছাড়েনি কোন বাস।

ক্রেডিট ফি কমানো, ক্লাসরুম-ল্যাব সংকট সমাধান সহ মোট এগারা দফা দাবিতে ১৩ জানুয়ারি রেজিস্ট্রার বরাবর স্বারকলিপি দিয়ে আল্টিমেটাম দেয় শিক্ষার্থীরা। দাবি না মানলে আজ(১৫ জানুয়ারি) তারা বিকাল ৫ টার পর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দেয়।

তাদের দাবিগুলো হচ্ছে-
১. ক্লাসরুম ও ল্যাব সংকটের অতিদ্রুত সমাধান করা।
২. ক্রেডিট ফি কমানো।
৩. যানবাহনের সংখ্যা বাড়ানো।
৪. বিশ্ববিদ্যালয়ের হলের সংখ্যা বাড়ানো।
৫. বিএনপি মতাদর্শী শিক্ষককে প্রশাসনিক দায়িত্ব দেয়া।
৬. ভর্তি ফি কমানো।
৭. ছাত্রকল্যাণ ফি এর অপব্যাবহার না করা।
৮. সকল হলে ডাইনিং চালু করা, সুলভ মূল্যে খাবার পরিবেশন করা।
৯. আবাসিক মেসগুলোর ছাত্র/ছাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং
১০.বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আশেপাশের মেসের ভাড়া নিয়ন্ত্রণ করা।
১১. একাডেমিক কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য অতিদ্রুত শিক্ষক,কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিয়োগ দেয়া।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ডা.মো.ফজলুল হক জানান, “ছাত্ররা কিছু দাবি দাওয়া দিয়েছে। কিন্তু সব গুলো দাবি একসাথে মানা যেকারো পক্ষেই সম্ভব না । তবে, তারা যে দাবি গুলো দিয়েছে সে ব্যাপারে ভিসি স্যার ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছেন। দশতলা একাডেমি ভবন, ছাত্রীদের আবাসিক হল নির্মাণের কাজ চলমান আছে, পরিবহনের জন্য ভিসি স্যারের আমলেই ১১টি গাড়ি যুক্ত হয়েছে এবং আরও ৪ টি বাস সহ ভেটেরিনারি মোবাইল ক্লিনিক এম্বুল্যান্স আসার অপেক্ষায় আছে। এছাড়াও ৪২৯ কোটি টাকার বাজেট আসার অপেক্ষায় আছে সেটি আসলে আবাসন সংকট সহ অন্যান্য সমস্যা গুলো কমে যাবে।

তিনি আরও জানান, বিএনপি সমর্থিত শিক্ষককে প্রশাসনিক দায়িত্ব দেয়ার বিষয়ে যে অভিযোগ আসছে সেটা বিষয়ে দেখা হচ্ছে। ওনাকে স্থায়ীভাবে কোন দায়িত্ব দেয়া হয়নি। যেকোন সময়েই তাকে অতিরিক্ত দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিতে পারেন স্যার। “

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ

Leave a Comment