করোনায় আবাসিক হল‌ বন্ধ থাকলেও ভাড়া গুনতে হচ্ছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের

করোনায় আবাসিক হল‌ বন্ধ থাকলেও ভাড়া গুনতে হচ্ছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের

কুবি প্রতিনিধি


মহামারী করোনায় কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো বন্ধ থাকলেও ভাড়া গুনতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। হলে না থেকেও চুড়ান্ত পরিক্ষায় বসতে পরিক্ষার ফি এর‌ সাথে হলের ভাড়া যোগ করতে হচ্ছে।

মহামারী করোনার ফলে গত ১৭ মার্চ ২০২০ এ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় এবং তার আবাসিক হল গুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়। গত ২১ শে ডিসেম্বর থেকে চুড়ান্ত পরিক্ষা নেওয়া শুরু করে। পরিক্ষার সিটে বসতে হলে পরিক্ষার ফি এর সাথে সাথে আবাসিক হলের টাকাও দিতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। বন্ধের পর থেকে দীর্ঘদিন না থাকা সত্ত্বেও কেন তাদের এই টাকা দিতে হচ্ছে এ নিয়ে অনেকে ক্ষোব প্রকাশ করেন।

উল্লেখযোগ্য যে অনাবাসিক মেস গুলোর ভাড়া ৬০% কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রসাশন কিন্তু হলের ভাড়া মওকুফের ব্যপারে তারা একেবারেই গাফেল।

এই ব্যপারে বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী এ.জে. রাব্বি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, “করোনাকালীন সময়ে মানবিকতার টানে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রস্তাবে ব্যাক্তিমালিকানাধীন মেসের ভাড়া অর্ধ-মওকুফ বা কিছু কিছু ক্ষেত্রে পূর্ণ মওকুফ করা হয়েছে। অথচ আবাসিক হলগুলোতে এখনো সে ধরনের উদ্যোগ নেয়া হয়নি। এটি সত্যি অনাকাঙ্খিত। যারা সবাইকে পথ দেখালেন তারা নিজের বেলায় কিভাবে এতোটা উদাসীন হয় তা আমার জানা নেই। আমরা আশা করি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন অচিরেই এই সমস্যার সমাধান করবেন।”

এ বিষয়ে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মো আবু তাহেরের সাথে কথা বললে তিনি জানান, “এটা তেমন আহামরি কোন বিষয় নয়। শিক্ষার্থীরা লিখিত আবেদন জানালে আমরা মওকুফের ব্যবস্থা করে দিব এবং ভিসি স্যারের সাথে এ বিষয়ে কথা বলব।”

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *