বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:৪৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরেনাম ::
ঐতিহাসিক ২রা ডিসেম্বর, পার্বত্য শান্তিচুক্তি ও আওয়ামী লীগ সরকার বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে বশেমুরবিপ্রবি’র নবনিযুক্ত রেজিস্ট্রারের শ্রদ্ধা মুখে কালো কাপড় বেঁধে রাবি সাংবাদিকদের প্রতিবাদ চবি: ডিসেম্বরেই পরীক্ষার দাবি, না মানলে আমরণ অনশনের ডাক ছোটগল্প: হত্যাকারী | আর্নেস্ট হেমিংওয়ে সাংবাদিকের ওপর ছাত্রলীগের হামলা দুবছরেও হয়নি তদন্ত! স্থূল জন্মহার নির্ণয়ের পদ্ধতি লিখ। জনসংখ্যা ক্রমাগত বৃদ্ধি পেলে প্রাকৃতিক সম্পদের উপর অতিরিক্ত জনসংখ্যার প্রভাব বিশ্লেষণ কর। বশেমুরবিপ্রবি পেল নতুন রেজিস্ট্রার বঙ্গবন্ধু’র ভাস্কর্য আমাদের অস্তিত্বের প্রতীক ৬ষ্ঠ শ্রেণির গণিত এসাইনমেন্ট / এ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ৫ম সপ্তাহ | Class 6 Math Assignment 5th Week Answer

ক্ষুদ্র ঋণ: গ্রামীণ মানুষের আতঙ্ক ও সমাধান

  • আপডেট টাইম রবিবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ১.৪৩ পিএম
ক্ষুদ্র ঋণ গ্রামীণ মানুষের আতঙ্ক ও সমাধান

মোহাম্মদ সোহাগ উদ্দিন


ক্ষুদ্র ঋণ হচ্ছে এমন একটি ঋণ ব্যবস্থা যেখানে গ্রামীণ মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ঋণ দেওয়া হয়। এর পরিমাণ ৫০০০- ৫০০০০ পর্যন্ত হয়ে থাকে। এই ঋণে প্রদানে কোনো জামানত নেওয়া হয় না। সাপ্তাহিক কিংবা মাসিক হারে সুদ সহ পরিশোধ করতে হয়। মূলত গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর দারিদ্র্য বিমোচনের লক্ষ্যে এটা দেওয়া হয়। বাস্তবতা ভিন্ন কথা বলে।

গ্রামীণ অর্থনীতির কথা উঠলেই প্রথমে চলে আসে এনজিও নাম। সবাই মনে করে যে গ্রামীণ অর্থনীতি শক্তিশালী বা টেকসই উন্নয়নে ভূমিকা রেখে চলছে এনজিও। আমাদের দেশে প্রথম এনজিও বা ক্ষুদ্র ঋণ সংস্থা গুলো কাজ শুরু করে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ যার পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৭৬ সালে পূর্ণগঠনের উদ্দেশ্য এবং গ্রামীণ অর্থনীতিকে ঢেলে সাজাতে তৎকালীন প্রেক্ষাপটে অনেকটা সফলও ছিল।

বাংলাদেশের এনজিও বিষয়ক ব্যুরো ১৯৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এটি প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের অধীনস্থ একটি বিভাগ। দেশের প্রত্যেকটি এনজিওকেই এর অধীনে নিবন্ধিত হতে হয়। বাংলাদেশে মোট ২৪৯৮ টি নিবন্ধিত এনজিও রয়েছে এরমধ্যে ২৪০ টি বিদেশি। যার অধিকাংশ যুক্তরাষ্ট্রের ও যুক্তরাজ্যের ।

এইসব এনজিওগুলোর ক্ষুদ্র ঋণ প্রদানে গ্রামীণ মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়নের চেয়ে অবনতি ও হয়রানি বেশি হয়েছে । এইসব ক্ষুদ্র ঋণের জন্য এনজিও গুলো চড়া হারে সুদ এবং খুব স্বল্প সময় বেধে দেয়। গ্রামীণ মানুষদের যেসব বিষয়গুলোর উপর ভিত্তি করে ঋণ দেওয়া হয় ;যেমন, হাঁস-মুরগি, গরু, ছাগল, ক্ষুদ্র ব্যবসা, সেলাই মেশিন ইত্যাদি ছোট ছোট বিষয়ের উপর ভিত্তি করে।

যে ব্যবসা বা কাজগুলো করে ঋণ পরিশোধ করার জন্য অত্যন্ত মিনিমাম ৩-৬ মাসের সময়ের প্রয়োজন। কিন্তু ক্ষুদ্র ঋণের এনজিও গুলো সেই সময় দিয়ে থাকে না। তাঁরা ঋণ দেওয়ার কিছুদিন পরেই পরিশোধ নেওয়া শুরু করে এবং বাড়ি বাড়ি গিয়ে ঋণ নিয়ে থাকে। লাভের মুখ দেখা সম্ভব বা সঞ্চয় করা সম্ভব হয় না।

তাহলে ক্ষুদ্র ঋণের এনজিও গুলো যেভাবে গ্রামীণ মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে তা প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে যায়। আর এইসব ঋণ পরিশোধ করতে গিয়ে গ্রামীণ মানুষগুলো তাঁদের ভিটেমাটি ও বিক্রি করতে হচ্ছে আর যারা তা ও পারছে না তাঁরা তাদের ভিটেমাটি রেখেই পালিয়ে যাচ্ছে। আবার এমনও দেখা গেছে যে এক এনজিওর ঋণ পরিশোধ করছে অন্য এনজিও থেকে ঋণ গ্রহণ করে বা একই এনজিও থেকে আরও ঋণ সংগ্রহ করে। আর স্বল্প শিক্ষিত ও অশিক্ষিত এনজিও কর্মীদের দূরব্যবহার তো আছেই।এতে করে গ্রামীণ দরিদ্র ও নিপীড়ত মানুষদের দুর্দশা ও হয়রানির শেষ হয় নাই ।

গ্রামীণ অর্থনীতিকে ঢেলে সাজাতে হলে এই এনজিও বা ক্ষুদ্র ঋণের নামে যে হয়রানি মূলক সংস্থা গুলো রয়েছে সেগুলোকে নির্দিষ্ট নিয়মের মধ্যে নিয়ে আসতে হবে নতুবা গ্রামীণ অর্থনীতির শক্তিশালী ভিত্তি আর গড়ে উঠবে না। ঋণের স্বল্প সময় নয় বরং দীর্ঘ সময় দেওয়া প্রয়োজন। অদক্ষ গ্রামীণ জনগোষ্ঠীকে দক্ষতাহীন রেখে ঋণ দেওয়া যাবে না। কেননা এতে তার কোনো লাভ নেই। সরকারের যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সাথে সমন্বয় সাধন করা প্রয়োজন। তাহলে ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন হবে।

লেখক: শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ, (তৃতীয় বর্ষ)
বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়।

The Campus Today YouTube Channel

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
themesbazar_creativenews_II7
© All rights reserved © 2019-20 The Campus Today
Theme Download From ThemesBazar.Com